Home / Uncategorized / যে কারনে রেশমি আলমের এই ভিডিওটি দেখা হয়েছে ৩.৬৫ কোটিরও বেশি বার।-দেখুন ভিডিওটি

যে কারনে রেশমি আলমের এই ভিডিওটি দেখা হয়েছে ৩.৬৫ কোটিরও বেশি বার।-দেখুন ভিডিওটি

রেশমি আলম একটি কুখ্যাত নাম।
তিনি তার খোলামেলা কাজের জন্য অনেক আগেই মিডিয়া জগতে কুখ্যাতি যুগিয়েছেন। আসুন তার একটি ভিডিওর নমুনা দেখা যাক।
নিজের ফেসবুকে খোলামেলা ছবি দিয়ে আলোচনায় আসার পর এবার চলচ্চিত্র পরিচালকদের সমালোচনা করলেন আইটেম গার্ল রেশমি অ্যালন। পরিচালকদের এক হাত দেখিয়ে বললেন, আমার সাথে কাজ করলে বুকের পাটা লাগে, যেই সকল ফিল্ম ডিরেক্টর বুকের পাটা আছে। ওরাই আমি রেশমী এলন এর যোগ্য ।

বিস্তারিত ভিডিওতে দেখুন। ভিডিও দেখতে নিচে ক্লিক করুন।

ভিডিওটি পোষ্টের নিচে দেয়া আছে। ভিডিওটি দেখতে স্ক্রল করে পোষ্টের নিচে চলে যান।

আরো পড়ুনঃ
দিনে দুটি কলা খেলে কী হয় ?? জানলে আপনি এখুনি খাওয়া শুরু করবেন !!
সহজলভ্য ফল কলা। দামেও সস্তা। তাই চট-জলদি ক্ষুধা মেটাতে অনেকেই কলা খেয়ে থাকেন। তবে নিয়মিত কলা খেলেও, এই ফলটির উপকারিতা সম্পর্কে অনেকেরই ধারণা নেই। তাদের জন্য এক কথায় বলা যেতে পারে কলা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। কলায় ভিটামিন সি, বি-৬, পটাশিয়াম, তন্তুসহ অনেক প্রয়োজনীয় উপাদান রয়েছে। এই উপাদানগুলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দীর্ঘ সুস্থ জীবনযাপনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

ওজন কমায়ঃ প্রচুর পরিমাণে তন্তু থাকায় কলা হজমে সাহায্য করে। এতে কোনো চর্বিও নেই। কলা খেলে ক্ষুধা কম লাগে। ফলে বারবার খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকা যায়। এতে সহজেই ওজন কমে যায়। তাই অতিরিক্ত ওজনের ব্যক্তিরা ডায়েটে কলা রাখতেই পারেন।

হাড় শক্তিশালী করেঃ হাড়কে মজবুত এবং শক্তিশালী করতে ভূমিকা রাখে কলা। এতে ফ্রুক্টোলিটোস্যাকারাইড বিদ্যমান থাকায় তা হজম প্রক্রিয়াকে ভালো রাখে। এ ছাড়া কলায় ক্যালসিয়াম রয়েছে, যা হাড়ের উৎপাদন এবং বৃদ্ধির জন্য খুবই জরুরি অস্টিওপোরোসিস এবং প্রাকৃতিক দুর্বলতা কাটাতেও সাহায্য করে কলা।

গেঁটের ব্যথা থেকে মুক্তিঃ অস্বাস্থ্যকর ডায়েটের কারণে যে কোনো বয়সের মানুষ আর্থ্রাইটিস এবং গেঁটের ব্যথায় ভুগতে পারেন। প্রাকৃতিকভাবে কলায় অ্যান্টি-ফ্লামেটরি বৈশিষ্ট্যগুলো বিদ্যমান থাকায় সহজেই এই ব্যথার উপশম হয়। তাই অনেক দিনের ব্যথা দূর করতে প্রতিদিনের ডায়েটে একটি করে কলা রাখুন।

কোষ্ঠকাঠিন্য রোধেঃ প্রচুর পরিমাণে তন্তু বিদ্যমান থাকায় কোষ্ঠ্যকাঠিন্য রোধে সাহায্য করে কলা। একইসঙ্গে পেটের নানা সমস্যা সমাধানেও ভূমিকা রাখে এটি। এতে অ্যান্টি-ফ্লামেটরি বৈশিষ্ট্য থাকায় তা পেটের ওপর নেতিবাচক প্রভাব রোধ করে। ফলে পাইলসের সমস্যাও দূর হয়।

About Admin Rafi

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *