Home / জাতীয় / ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র সাংবাদিককে প্রাণ নাশের হুমকিতে সাংবাদিক মহলে ক্ষোভ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র সাংবাদিককে প্রাণ নাশের হুমকিতে সাংবাদিক মহলে ক্ষোভ।


মোঃ আব্দুল হান্নান, নাসিরনগর, (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সিনিয়র সাংবাদিক, দৈনিক মানব জমিনের স্টার্ফ রির্পোটার মোঃ জাবেদ রহিম বিজন কে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। জেলার আখাউড়া উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও পৌর মেয়র তাকজিল খলিফা কাজলের অনুসারিরা বিভিন্ন ফেইসবুক আইডির মাধ্যমে অনবরত বিজন কে এই হত্যার হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। হত্যা মামলা সহ দেড় কোটি টাকা খরচ করে সাংবাদিক বিজন দেখা হবে উল্লেখ্য করে শনিবার রাতে কাজল ভাইয়ের সমর্থক নামীয় একটি ফেইসবুক আইডি থেকে এই পোষ্ট দেওয়া হয়। তাছাড়া সাংবাদিক জাবেদ রহিম বিজনের হাতের মূল্য ১ কোটি ও পায়ের মূল্য ৫০ লক্ষ টাকা ঘোষণা করা হয়েছে। আখাউড়া যুবলীগের আহ্বায়ক ও পৌর মেয়খ তাকজিল খলিফা কাজলকে নিয়ে সম্প্রতি দৈনিক মানবজমিন পত্রিকায় একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে উপজেলা যুবলীগ নেতা তাকজিল খলিফা কাজলের নানা অনিয়ম দূর্নীতির চিত্র তুলে ধরে সংবাদ প্রকাশিত হয়। কাজল ছাড়া ও তার ভাই ভাতিজাদের কু-কর্মের চিত্র প্রকাশ করা হয় ওই সংবাদে। খবর প্রকাশিত হওয়ার পর ওই দিন আখাউড়া দৈনিক মানবজমিনের কয়েক শ কপি পত্রিকা ছিনতায় করে নেওয়া হয়। এরপর যুবলীগ নেতা কাজলের বাড়িত নিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শাহাবুদ্দিন বেগ শাপলু ছাড়া ও কাজলেল ভাইয়ের ছেলে রানা খলিফা পত্রিকা ছিনতাই ও পুরানোর ঘটনায় নেতৃত্ব দেয়। তাছাড়া ও এ সময় তাদের সাথে আর ও দশ পনের জন ছিল। উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শাহাবুদ্দিন বেগ শাপলু, সহ সভাপতি সৈয়দ যুবরাজ শাহ রাসেল সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন নয়ন, পৌর যুবলীগ সভাপতি মোঃ মনির খাঁন, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন আহ্বয়ক আব্দুল মোমিন বাবুল, যুবলীগ নেতা ছগির আহাম্মেদ, উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাতিজা পারভেজ ভুইয়া, কাজলের চাচাত ভাই শ্রমিকলীগ সভাপতি লাকসু খলিফা, যুবলীগ নেতা রুবেল শিপন আহাম্মেদ, জসিম উদ্দিন রনি, আব্দুল আল মামুন ইত্যাদি নামিয়া ফেইসবুক আইডি থেকে সাংবাদিকে হুমকি দিয়ে পোষ্ট দেওয়া হচ্ছে। সাংবাদিক জাবেদ রহিম বিজন বলেন যুবলীগ নেতা ও তার অনুসারীদের কাছে অসহায় আখাউড়ার লোকজন। সেই চরিত্র এই তুলে ধরা হয় খবরে। যা ব্যাপক ভাবে প্রসংশিত হয়েছে। তবে এই খবরে দূবৃর্ত্তদের মাথার ভাঁজ ভেঙ্গে পড়েছে। তাই তারা এমন করছে।

About News Desk

Leave a Reply