Home / বিনোদন / উজ্জ্বল ত্বক পেতে ঘরোয়া ৫ উপায়

উজ্জ্বল ত্বক পেতে ঘরোয়া ৫ উপায়

লাইফ স্টাইল ডেস্ক, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর: আমাদের সবারই উজ্জ্বল হতে বেশ লাগে। আর তাই একটু উজ্জ্বল ত্বক পাওয়ার জন্য আমরা অনেকেই অনেক কিছু করে থাকি। কিন্তু কেমিক্যাল আমাদের কোমল ত্বকের অনেক ক্ষতি করে। আর সেটা জেনেও সুন্দর দেখানোর জন্য আমরা অনেক সময় কেমিক্যালের আশ্রয় নিই। কিন্তু কেমিক্যালের আশ্রয় না নিয়েও উজ্জ্বল থাকা সম্ভব। কিভাবে জানতে চান? তাহলে আপনার জন্য রইল সাধারণ কিছু উপাদান দিয়ে নিরাপদে ফর্সা হওয়ার কিছু টিপস-

১. দুই চামচ টক দইয়ের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে নিন৷ ভালো করে ফেটিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন৷ তারপর সেই পেস্ট মুখে লাগিয়ে আধ ঘণ্টার মতো রেখে দিন৷ এর মধ্যেই আপনার পেস্টটি একেবারে শুকিয়ে যাবে৷ তারপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন৷ এতে আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতাও বাড়বে এবং নরমও হবে৷

২. কফি কিংবা কোকো পাউডার অল্প করে একটি পাত্রে নিয়ে নিন৷ কোকো পাউডারের সঙ্গে এক-দুই চামচ মধু মিশিয়ে মুখে, গলায় এবং ঘাড়ে লাগিয়ে নিন৷ তারপর ভালো করে মাসাজ করতে থাকুন৷ শুকিয়ে যাওয়ার পর সাধারণ তাপমাত্রার পানিতে ভালো করে ধুয়ে নিন৷ এতে ত্বকের ভাজ দূর হয়৷

৩. ডিমের সাদা অংশ নিয়ে তার মধ্যে লেবুর রস মিশিয়ে দিন৷ ব্ল্যাকহেডসের কারণে ত্বকের অনেকাংশ কালো লাগে দেখতে৷ সেটাই দূর করতে এই পেস্টটা লাগিয়ে ফেলুন৷ অনেকক্ষণ লাগিয়ে রাখার পর ভালো করে ধুয়ে ফেলুন৷ একদিন পেস্টটি ব্যবহার করলেই অনেকদিন এর এফেক্ট থাকে৷

৪. পরিমাণ মতো দুধের সঙ্গে টমেটো পিউরি মিশিয়ে একটা ঘন পেস্ট বানিয়ে ফেলুন৷ সারা রাত এই পেস্টটি লাগিয়ে রাখলে খুবই উপকারী৷ যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে বেশ অনেকক্ষণ লাগিয়ে রাখুন৷ তাতে আপনার ত্বকের ট্যান উঠবে৷ উজ্জ্বলও হবে৷

৫. বিশুদ্ধ হলুদ গুঁড়ার সঙ্গে খাঁটি নারকেল তেল মিশিয়ে নিয়ে একটা পেস্ট তৈরি করুন৷ অয়লি স্কিনের জন্য এই পেস্ট খুবই উপকারী৷ মুখে প্রায় এক ঘণ্টা লাগিয়ে রাখুন৷ এতে ত্বকও ভালো হয়৷ ত্বকের বিভিন্ন সমস্যাও মেটে৷

******

*****আরও পড়ুন

*****

শীতের দিনে ত্বক ফর্সা ও উজ্জ্বল রাখার কিছু উপায়:

শীতের দিন আসা মানেই যেন গায়ের রঙ কালো হয়ে যাওয়া, চেহারা হয়ে পড়া মলিন ও নিষ্প্রাণ। একটু লক্ষ্য করলেই দেখা যায়, শীতের দিনে চেহারার ফর্সা ও উজ্জ্বল ভাবটা কেমন যেন হারিয়ে যায়। তবে একটু নিয়ম মেনে চললেই এই শীতেও ত্বক থাকবে ফর্সা ও উজ্জ্বল।

১. ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করার জন্য একদিন পর পর ব্যবহার করুন তাজা টমেটো। একটি টমেটোর পাল্প পুরোটা বের করে নিন, এর সাথে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস ও সামান্য মুলতানি মিশিয়ে ব্যবহার করুন মুখে-গলায়-হাতে। গোটা শীত জুড়েই ত্বক থাকবে ঝলমলে।

২. এই শীতে ত্বক নরম ও ফর্সা করতে আরেকটি চমৎকার উপাদান হতে পারে পাকা পেঁপে। পাকা পেঁপে চটকে নিয়ে তার সাথে মধু, সামান্য কাঁচা হলুদ ও কাঁচা দুধ মিশিয়ে মুখে-গলায় লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একদিন এটা করতে পারেন, ত্বক হয়ে উঠবে ঝলমলে।

৩. শীতের দিনে চেহারা মলিন ও কালো দেখানোর প্রথম কারণ ভুল ক্রিম নির্বাচন। বিশেষ করে যাদের ত্বক তৈলাক্ত, তাঁদেরকে যেন কালো আরও বেশি দেখায়। দেখেশুনে বুঝে নিজের জন্য এমন ক্রিম নির্বাচন করুন যেটা সহজে মুখের সাথে মিশে যায় ও চিটচিটে ভাব তৈরি করে না। অতিরিক্ত তৈলাক্ত ক্রিম পরিবেশের ধুলোবালি মখে আটকে ফেলে, ফলে নষ্ট হয়ে যায় চেহারার সৌন্দর্য। ত্বকে ময়লা জমে আপনাকে দেখায় কালো।

৪. রোদে বের হবার আগে অবশ্যই ছাতা ব্যবহার করুন। শীতের ত্বক যতই মিষ্টি লাগুক অনুভব করতে, আসলে কিন্তু গ্রীষ্মের রোদের মতই ক্ষতিকর। একই সাথে খুব বেশি গরম পানি দিয়েও গোসল করবেন না। এতে আপনার ত্বকের সৌন্দর্য ও প্রাকৃতিক রঙ, দুটোই হারাবে।

৫. শীতের মৌসুমে ত্বকে মরা কোষটাও বেশি জমে। তাই নিয়ম করে সপ্তাহে ২/৩ বার স্ক্রাবিং করুন। এক্ষেত্রে কফি ও চিনির মিশ্রণ সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে স্ক্রাবার হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। কফি ত্বক উজ্জ্বল করে।

৬. গোসলের আগে মুখ সহ পুরো শরীরে ভালো করে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করুন। তারপর ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন, ত্বককে সময় দিন তেল শুষে নেবার। তারপর গোসল সেরে ফেলুন। ত্বক একই সাথে থাকবে ঝলমলে, ফর্সা ও নরম।

৭. সে সাথে খাবেন প্রচুর পানি ও শাকসবজি। অবাক হচ্ছে? অবাক হবার কিছু নেই। শীতকালে আমরা পানি খাওয়ার পরিমাণ একেবারেই কমিয়ে দেই, ফলে ত্বক হারায় স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা। আর কেবল শীত বলে নয়, যে কোন মৌসুমেই সহজলভ্য শাকসবজি ও ফল আপনাকে সুস্থ ও সুন্দর রাখে।

৮. শীতে হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন। দিনে দুবার খাটি গোলাপ জল তুলায় লাগিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নিন। ত্বক হয়ে উঠবে নরম ও ফর্সা।

৯. গরম কালে ব্যবহার করা ফেসওয়াশটি শীতে বদলে ফেলুন। বেছে নিন আরও মাইলড ফেসওয়াশ। অতিরিক্ত ক্ষারযুক্ত ফেসওয়াশ ও সাবান আপনাকে করে তুলবে কালো।

About Saimur Rahman

Leave a Reply