Home / আইন ও আদালত / বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যানের সঙ্গে BIAC

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যানের সঙ্গে BIAC

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল আরবিট্রেশন সেন্টার (BIAC) এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ এ. (রুমী) আলীর নেতৃত্বে একটি টিম আগারগাঁওয়ের ইউজিসি ভবনে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড: কাজী শহিদুল্লাহ এর সাথে স্বাক্ষাত করেন। নুরনাহার বেগম শিউলি, উপ-সচিব (আইনী) (জেলা ও দায়রা জজ) এবং বিয়াক এর কাউন্সেল রুবাইয়া এহসান কারিশমা উক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

আলোচনার শুরুতে আলী অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে এফডিআই (FDI) এর এর ভূমিকাতে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি কেন গুরুত্বপূর্ণ তা ব্যাখ্যা করেন। ২০২০ সালের বিশ্বব্যাংকের ডুইং বিজনেস ইন্ডেক্স প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী চুক্তি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ১৯০ টি অর্থনীতিতে বাংলাদেশ অবস্থান ১৮৯ তম উল্লেখ করে তিনি বলেন যে, দীর্ঘসময়, ব্যয় এবং বিচার বিভাগীয় প্রক্রিয়ার জটিলতায় আমরা বিনিয়োগকারীদের আস্থা হারাচ্ছি। ফলস্বরূপ দেশে এফডিআইয়ের প্রবাহ কম হচ্ছে। যদিও, আমরা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যসমূহ (SDG) এর স্বাক্ষরকারী যার মধ্যে মানসম্মত শিক্ষা (SDG-4) এবং শান্তি বিচার ও শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান (SDG- 16) অন্তর্ভূক্ত রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

অধ্যাপক শহীদুল্লাহ এই উদ্যোগের প্রশংসা করে উল্লেখ করেন যে সাধারণত পাঠ্যক্রমের যে কোনও পরিবর্তন সম্পর্কে অনুষদের সদস্যরা একটি পরিকল্পনা ও প্রস্তাব প্রস্তুত করেন যার ভিত্তিতে ইউজিসির সদস্যদের আলোচনা হয় এবং অনুমোদনের ভিত্তিতে সিদ্ধান্তটি কার্যকর হয়। এছাড়া আইন পাঠ্যক্রমের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের অনুমোদনের প্রয়োজন হয়।

আলী উল্লেখ করেন যে BIAC ইতিমধ্যে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সাথে আলোচনা শুরু করেছে এবং এ বিষয়ে গত বছর শিক্ষাবিদদের সাথে একটি গোল টেবিল বৈঠক এর আয়োজন করেছে। উক্ত সভার সর্ব সম্মত প্রস্তাব ছিল যে ইউজিসিকে এ বিষয়টি অবহিতকরণ এর মাধ্যমে ধারণাটি সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। সচেতনতা তৈরির জন BIAC যৌথভাবে একটি সেমিনার আয়োজন করবে যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রমে এডিআর অন্তর্ভূক্ত করার পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করা যেতে পারে বলে আলী উল্লেখ করেন।

বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি কার্যকরভাবে বিশ্বজুড়ে প্রচলিত হয়েছে এবং বেশিরভাগ উন্নত অর্থনীতিতে বিরোধসমূহ প্রথমে আদালতের বাইরে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতিসমূহ এর মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করা হয়, সমাধান না হলে শেষে মামলা মোকদ্দমার মাধ্যমে সমাধান করা হয়। বাংলাদেশ আইনগুলিতে বেশ কিছু আইনে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি এর বিধান রয়েছে । তিনি আরো বলেন যে, বাংলাদেশ নিউইয়র্ক কনভেনশনের একটি স্বাক্ষরকারী দেশ তবে, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে আইনপাঠ্যক্রমগুলিতে পাঠ্যক্রমের অংশ হিসাবে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি সেইভাবে পড়ানো হচ্ছে না। আমরা জানি, সচেতনতা অবশ্যই শ্রেণিকক্ষ থেকে শুরু করা উচিত এবং বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তিকে ব্যবসা এবং আইন পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত যাতে আগত প্রজন্ম তাদের পেশায় এই জ্ঞানটি প্রয়োগ করতে পারে।

About News Desk

Leave a Reply