Breaking News
Home / এক্সক্লুসিভ / ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিল্টনের আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়ে বিদায়

১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিল্টনের আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়ে বিদায়

স্বদেশ কন্ঠ, আরজে সাইমুর রহমান মিলন:
দক্ষিনের ১নং ওয়ার্ডের সফল অভিভাবক ও কাউন্সিলর ওয়াহিদুল হাসান মিল্টন আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়ে বিদায় জানিয়েছেন।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আগামীর সুন্দর প্রত্যাশায় ও সকলের মঙ্গল কামনায় য লিখেছেন তা হুবুহু তুলে ধরা হলো-

আমি ওয়াহিদুল হাসান মিল্টন, কাউন্সিল ১ নং ওয়াড ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ঃ সম্মানিত খিলগাঁও ১নং ওয়ার্ড বাসী আস সালামুয়ালাই কুম। ২০১৫ সালের ৬ই মে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনিত নির্বাচিত কাউন্সিলর হই এবং ১ নং ওয়ার্ড এর দায়িত্ব গ্রহন করি।এই বহমান সময়ে দিন মাস সময় পেরিয়ে, সময়ের শেষ প্রান্তে চলে এসেছি।এই দীর্ঘ সময়ে ও পথ পরিক্রমায় -আমার জানা মতে দায়িত্ব ও কর্তব্যে কখনো অবহেলা করিনি আমি, প্রতিদিন প্রতিক্ষন শুধু ভেবেছি কিভাবে এলাকার উন্নয়ন এবং নাগরিক জীবনের প্রতিদিনের যে সব সমস্যার মুখোমুখি হই তা দুর করতে, সেটা আমার দায়িত্বের মধ্যে অথবা দায়িত্ব্যর বাইরে হলেও। আপনারা ১ নং ওয়ার্ড তথা খিলগাও বাসী অবশ্যই অবগত আছেন- গত পাঁচ বছর আগের খিলগাঁও ১নং ওয়ার্ড এবং বর্তমান ১নং ওয়ার্ড।আমি প্রতিদিন প্রতিটা সকাল এ কাজ করেছি পরিছন্নতার জন্য, জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য এলাকার সবুজায়নের জন্য রাস্তাঘাট খেলারমাঠ উন্নয়নের জন্য এবং প্রতিটি রাস্তা আলোকিত করার জন্য।সেই সাথে সকাল ১০ টা থেকে এইসব কাজের মাঝে অফিসিয়াল সেবা তো ছিলোই রাত ১১ টা ১২ টা পর্যন্ত, আমি অক্লান্ত পরিশ্রম করেছি কারন এখানে আমাদের বাবা চাচা ভাই বোন ছেলে মেয়ে অথ্যাৎ আমাদের সন্তানরা যেন বাস যোগ্য দূষণমুক্ত পরিবেশে বেড়ে উঠতে পারে।জন প্রতিনিধি হিসাবে আমার প্রতিক্ষনের চাওয়াই ছিলো জনগনের খুব কাছে যাওয়া তাদের যে কোনো সমস্যার সাথে কাধে কাধ মিলিয়ে কাজ করা আমি কতটুকু করতে পেরেছি তার মূল্যায়ন আপনারাই করবেন।দীর্ঘ সময় পরিক্রমায় চলতে চলতে নিজের অজান্তে কোনো ভুল বা কষ্ট দিয়ে থাকলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ জানাচ্ছি। আপনাদের অনুপ্রেরণায় আজ আমি এতদুর এসেছি,আপনারা আমাকে সম্মানিত করেছেন আমি কৃতজ্ঞ আপনাদের প্রতি,সাথে সাথে আবারও দোয়া ও সহযোগীতা চাই যেনও অদুর ভবিষ্যৎ এ রাজনৈতিক ভাবে সূদৃহ অবস্হান গড়ে সবসময় আপনাদের পাশে থাকতে পারি। খিলগাঁও তথা ১ নং ওর্য়াডের সার্বিক উন্নয়নে যাদের সর্বাত্বক সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণায় সুচারু ভাবে উন্নয়ন সেবাগুলো সম্পন্ন করতে পেরেছি তারমধ্যে সবার আগে যিনি আমার রাজনৈতিক অভিভাবক মাননীয় এম পি, জনাব সাবের হোসেন চৌধুরী এবং মাননীয় বিদায়ী মেয়র জনাব সাইদ খোকন। আমি চিরকৃতগ্য আমার ফ্যামিলী ও ভাই বন্ধু এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে যারা আমাকে প্রতি নিয়ত অনুপ্রানিত করেছেন ভালো কিছু করার জন্য -আগামীতে নতুন কাউন্সিলর আসবেন তাকে আপনারা সার্বিক সহযোগিতা করবেন। আমার জন্ম এবং বড় হয়ে ঊঠা খিলগাঁও এর সনামধন্য আওয়ামী রাজনৈতিক পরিবারে,তাই আমি কাউন্সিলর হিসেবে, একজন জন প্রতিনিধি হিসেবে যেমন আপনাদের সেবায় নিয়োজিত ছিলাম আগামীতেও যে কোন সেবায় এবং প্রয়োজনে আপনাদের পাশেই , আপনাদের সাথেই থাকবো ইনশাআল্লাহ।
আবারও আপনাদের সবাইকে সালাম জানিয়ে সু সাস্হ্য এবং দীর্ঘায়ু ও মঙ্গল কামনায় বিদায় নিচ্ছি আপনারা আমার এবং আমার ফ্যামিলীর জন্য দোয়া করবেন।। ভালো থাকবেন সবাই।। জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু

*******************
আরও পড়ুন
******************
যেসব পাসওয়ার্ড ভাঙার ক্ষমতা নেই হ্যাকারদের

জন্মতারিখ, বিয়ের তারিখ, নাম দিয়েই সাধারণত পাসওয়ার্ড তৈরি করে থাকেন অনেকে। আর এই পাসওয়ার্ড সহজে ভেঙে আপনার গোপন জায়গায় ঢুকতে বেশি সময় লাগে না হ্যাকারদের। তারা এ বিষয়ে সিদ্ধহস্ত। কিন্তু পাসওয়ার্ডকে ‘লেয়ার আপ’ করবেন কেমন করে?

সহজ ভাষায় আপনার পাসওয়ার্ডের সঙ্গে জুড়ে দিতে পারেন গোপন নম্বর, যা আপনার সঙ্গে কোনোভাবেই সম্পর্কিত নয়। মনে রাখার স্বার্থে এমন অভ্যাস কমবেশি সকলের আছে ঠিকই, কিন্তু এই অভ্যাস একেবারে ভালো নয় বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। পাশাপশি আপনার ডিভাইসের আইপি অ্যাড্রেসের সঙ্গে সংযুক্ত রাখতে পারেন পাসওয়ার্ড।
মিলিয়ে মিশিয়ে রাখুন স্পেশাল ক্যারেকটারদের। অর্থাৎ পাসওয়ার্ড রাখতে পারেন, Bp}H;eF:{*@y(D2I8?2d|G~yf8`8.
কী ভাবছেন, এরকম কঠিন পাসওয়ার্ড মনে রাখবেন কেমন করে? প্রথমে নিজের গোপন ডায়েরিতে লিখে রাখুন। এছাড়া পাসওযার্ড ম্যানেজার রাখতে পারেন। যেখানে সমস্ত পাসওয়ার্ড তুলে রাখবেন।
উল্লেখ্য, আপার কেস, লোয়ার কেস সহ স্পেশাল ক্যারেকটারের সঙ্গে নাম দিয়ে তৈরি পাসয়ার্ডও ভেঙে ফেলতে পারে হ্যাকাররা।
নম্বর এবং অক্ষর পরপর দিয়ে পাসওয়ার্ড তৈরি করবেন, এই ভুল তো কখনই করবেন না।
মাঝে মাঝে পাসওয়ার্ড বদল করবেন।
টু-ফ্যাক্টর অথেন্টিকেশন সর্বদা অন রাখবেন। যার ফলে অন্য কোনো ডিভাইস থেকে আপনার অ্যাকাউন্ট খুলতে চাইলে তা কখনই সম্ভব হবে না। কারণ আপনার ফোনে আসা নোটিফিকেশন থেকে আপনাকে অনুমতি দিতে হবে। তবেই সে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবে।
সমস্ত অ্যাকাউন্টে একই পাসওয়ার্ড কখনই রাখবেন না।

About Saimur Rahman

Leave a Reply