Breaking News
Home / বাংলাদেশ / কন্ঠশিল্পী সাবরিনা সাবার অভিযোগ

কন্ঠশিল্পী সাবরিনা সাবার অভিযোগ

নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ কন্ঠ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর রহমান: নতুন প্রজন্ম ও সময়ের আলোচিত কন্ঠশিল্পী সাবরিনা সাবা ইতিমধ্যে বেশ কিছু জনপ্রিয় গান দর্শক ও শ্রোতাদের উপহার দিয়েছেন। তার অনেক গানই লক্ষ, কোটি বার দেখেছে দর্শক। গতকাল তার ফেসবুক প্রোফাইলে যত অভিযোগ ছিল তা বর্ননা দিয়েছেন। তা নিম্নরূপ:
#মুজিববর্ষ উপলক্ষে ১০০ শিল্পী নিয়ে #গানবাংলা অনুষ্ঠান করেছে। আমি ইনভাইটেশন পাইনি। ১০০ শিল্পীর মাঝেও আমার অবস্থান নাই।
তারা জীবনেও আমার গান চালায়নি তাদের চ্যানেলে।
তোহ?

#এনটিভির রিয়েলিটি শো মার্ক্স অলরাউন্ডার এর থার্ড রানার আপ থাকার পর ও ১০ বছরে আমাকে একটা লাইভ এও তারা আমন্ত্রণ জানায়নি।

ইনফ্যাক্ট, ২/১ টা শীর্ষ পত্রিকায় যাদের হাঁচি/কাশি।
নিউজ ও করে, কোন সেলেবের বাসায় কুত্তা মরেছে তার ও নিউজ করে।
তারা আমাকে নিয়ে ফিচার করে নাই কোন দিন ও।

#মেরিল ১ম আলোর নমিনেশন পাওয়ার পর ও সেই বছর আমাকে কার্ড পাঠানো হয় নাই। যেখানে- কণা, ন্যান্সি আপুর ১টা গান নমিনেশনে ছিল, আর আমার Only Saba 2 পুরো album নমিনেটেড হয়েছিল।

ইভেন, এখনো কয়েকটা টিভি চ্যানেল লাইভ দেওয়ার কথা বললে, “কাছে এসো… কাছে এসো….কাছে এসোনা…………………..
কাছে আসার #গল্প শোনায়”…!

এক সেলেবের সাথে, #এশিয়ানটিভি এক ই লাইভ অনুষ্ঠানে গান গাওয়ার সময়, সেই বেসুরো শিল্পীকে আমার চেয়ে ৩/৪ বেশি গানের সুযোগ দিয়েছিলেন। এবং সেই সাথে আমার ফ্যানদের একটা রিকুয়েষ্ট কল ও নেওয়া হয়নি। লাইভটা আমি কান্না চেপে করেছিলাম।

#আরটিভিতে লাস্ট লাইভ শো #মিউজিকস্টেশন। আগের দিন রাতে জাস্ট কল করেছে, কোন প্র‍্যাক্টিসের সুযোগ ও দেয়নি আমাকে আমার সেলেব কো- আর্টিস্ট। সেই কান্না চেপে, বেস্ট টা দিয়েছিলাম। অনেকেই দেখেছেন।

অনেক হিউমিলিয়েট, অনেক হিপোক্রেসি।
মরে যাব? আত্মাহুতি দেব?
তাহলে, এগুলো দিয়ে এই লবিং, নেটওয়ার্ক, শিল্পী, ছাগু নির্বাচন করবে? ওই ১০০ শিল্পীর মাঝে না থাকাটা কি আমার সংগীতশিল্পী হিসেবে অবস্থান কেড়ে নেবে, জাজ করে ফেলবে?
আমার বাবা মা আমাকে ঘাস খাইয়ে ছায়ানট, নানান জায়গায়, গুরু ওস্তাদের কাছে গান শিখিয়েছেন? নাকি আমি টাকার গাছ লাগিয়ে ছোটবেলার জাতীয় শিশু পুরস্কার পেয়েছি?
আমি দেখে যাই, মুখ টিপে হাসি।
জ্যান্ত মানুষকে সম্মান দেয়না যারা, এরা মরে গেলে শিল্পীর কদরে মরনোত্তর সম্মাননা গছিয়ে দেয়, আর পত্রিকার হেডলাইন করে।

যারা সুযোগ দিয়েছে, কৃতজ্ঞ।
এখনো তাদের ডাকে চিন্তা ছাড়াই দেই ছুট।

আল্লাহর রহমতে গান তো কোটি, লাখের ঘরে!
আপনারা বাসেন না আমায় ভাল?
#আপনাদের_কাছে_আসার গল্পটাই আমার জন্য দরকার।
এটাই বেঁচে থাকার জন্য দরকার।

সবাই এগুলো লিখেনা, লিখবেনা। 😅
সাবরিনা সাবা লিখে।
তার কলিজা তার শরীরের চেয়েও বড়।
তাই কিছু সংখ্যককের কাছে সে বড়ই খারাপ।
বড়ই বেমানান।
(হয়ত এবার এই স্ট্যাটাসের জন্য ব্ল্যাকলিস্ট ও করে দিতে পারে) 😅

*********************
আরও পড়ুন
*********************
কেন গোপনে দেশে ফিরলেন এন্ড্রু কিশোর?
দীর্ঘদিন চিকিৎসা শেষে গোপনে দেশে ফিরেছেন ঢাকাই সিনেমার প্লেব্যাকের সম্রাট খ্যাত এন্ড্রু কিশোর। বরেণ্য এই শিল্পী সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে ক্যানসারের চিকিৎসা নিয়ে দীর্ঘ ৯ মাস পর গেল ১১ জুন রাত আড়াইটায় দেশে ফিরেছেন।

বিষয়টি আরটিভি অনলাইনকে নিশ্চিত করেছেন তার ঘনিষ্ঠজন বাংলা গানের যুবরাজ খ্যাত সঙ্গীত শিল্পী আসিফ আকবর।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আসিফ আকবর বলেন, দাদা (এন্ড্রু কিশোর) ঢাকায় নিজের বাড়িতেই আছেন। আগে ফিরলেও বিষয়টি তিনি কাউকে জানাতে চাননি। মূলত এই করোনার সময় ঝুঁকি নিয়ে কষ্ট করে কেউ যেন তাঁকে দেখতে না যান। কারণ সবার প্রতি এই বরেণ্য মানুষের অন্যরকম এক ভালোবাসা রয়েছে। তিনি আপনাদের মাধ্যমে দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।
উল্লেখ্য, গেল বছরের ৯ সেপ্টেম্বর উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যান এন্ড্রু কিশোর। সেখানেই চিকিৎসা শেষে আগের চেয়ে অনেকটা ভালো রয়েছেন তিনি। আরও আগেই দেশে ফেরার কথা থাকলেও করোনার কারণে তা পিছিয়ে যায়।

*********************
আরও পড়ুন
*********************
জয়নুল আবেদীন ও শাহীনুর রহমান শাহীনের গান ‘বাবা আমার বটবৃক্ষ’
প্রতি বছর ২১ জুন বিশ্ব বাবা দিবস। বাবার মমতা ভালোবাসা ত্যাগকে কেন্দ্র করে জয়নুল আবেদীন তার কথা ও সুরের আবেগে সৃষ্টি করেছেন, ‘বাবা আমার বটবৃক্ষ’ শিরোনামের একটি গান। ‘বাবা আমার বটবৃক্ষের ছায়া, সে বুকের নিঃশ্বাসে গড়া বিশ্বাসে ভরা আশ্বাসগুলো শুধুই আমার এগিয়ে চলার ভায়া’ এমন কথার গানে কণ্ঠ দিয়েছেন এই প্রজন্মের সঙ্গীতশিল্পী শাহীনুর রহমান শাহীন।

গান নিয়ে আবেগঘন মিউজিক ভিডিওটি তৈরি করেছেন তরুণ নাট্য নির্মাতা শ্রাবণ চক্রবর্তী দীপু এবং মিউজিক কম্পোজ শাহীনুর রহমান শাহীনের। ভিডিওটি সার্বিক পরিমার্জন করেছেন সঙ্গীতপরিচালক রাজন সাহা। গানটি ‘STUDIO JOYA’র ইউটিউব চ্যানেলে সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে।
গানটির শিল্পী শাহীনুর রহমান শাহীন বলেন, আমার এই সঙ্গীতের ক্ষুদ্র জীবনে অনেক গানই গেয়েছি। তবে গীতিকার জয়নুল আবেদীন ভাই যখন বাবা সম্পর্কিত চমৎকার এই গানটি লিখে নিজে গেয়ে তার ফেসবুক প্রোফাইলে পোস্ট করেন। তখনই এই গানটি আমার দারুণ পছন্দ হয় এবং আমি গানটি গাইতে চাই। জয়নুল ভাই আগ্রহ প্রকাশ করলে প্রিয় বন্ধু গীটারিষ্ঠ তপন ভাইয়ের সহায়তায় গানটি প্রস্তুত করে ফেলি। বাবার প্রতি ভালোবাসার টানে এই গান গেয়ে আমি তৃপ্ত।

গানটির গীতিকার জয়নুল আবেদীন বলেন, মাকে নিয়ে এই পৃথিবীর গল্প, কাব্যকথা আর সঙ্গীতের ভাণ্ডার পরিপূর্ণ। কিন্তু বাবা নামক নিঃস্বার্থ সন্তানবৎসল মানুষটি চিরকাল পেছনেই যেন পড়ে থাকে। সেই চিন্তা থেকেই বাবা সম্পর্কিত এই গানটি আমি যেনো এক টানেই লিখে ফেললাম। ছেলেবেলায় বাবা আমাকে ভালোবাসার শাসনে এগিয়ে দিয়েছেন জীবনের এই দিকে। আমি বড় বেশি বাবা প্রেমিক হিসেবেই এই গান লেখার মাঝেই কেঁদেছি। সুরটা হয়তো বা গতানুগতিক। গানটি শাহীন গাইলে এটিকে একটি মিউজিক ভিডিওর মাধ্যমে অ্যালবামরূপে প্রস্তুত করি দীপুর সহায়তায়। আর সন্তানরূপে আলিফ আর শাদীর বিপরীতে বাবার ভূমিকায় অভিনয়টি আমিই করার চেষ্টা করেছি। এই গনটি প্রিয় সংগীত পরিচালক রাজন দা তাঁর ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ করলে অনেক বিজ্ঞজনের আবেগঘন মন্তব্যে আপ্লুত হয়ে পড়ি। গানটি শুনে কারো মনে সামান্যতম হৃদয়ক্ষরণ হলেই আমি সার্থক।

About Saimur Rahman

Leave a Reply