Breaking News
Home / ভিডিও / চায়নার এই পন্য গুলো আসলে কতোটা উপকারী || -দেখুন ভিডিওতে

চায়নার এই পন্য গুলো আসলে কতোটা উপকারী || -দেখুন ভিডিওতে

চায়না সম্পর্কে আমাদের সবারই কমবেশি ধারনা রয়েছে। শুধু ধারনা বললে ভুল হবে হয়তো, এমনকি একটা বাচ্চা ছেলেকেও জিজ্ঞাস করলে হয়তো বলতে পারবে চায়না কি জিনিস? হয়তো হাসছেন, হাসাটাই স্বাভাবিক।

চায়না তৈরি করতে পারে না এমন জিনিস খুজে পাওয়া সত্যিই কষ্টকর। বরঞ্চ এরা অন্যান্য দেশের থেকে অনেক আগানো। এরা অদ্ভুত এমন কিছু জিনিস তৈরি করে না , যা কিনা বহুল সমালোচিতও বটে। তাই বলে এমন আবিস্কার। ভিদিওটি দেখলে সত্যিই আপনি থ হয়ে যাবেন।

ভিডিওটি দেখতে নিচে ক্লিক করুন

ভিডিওটি পোস্টের নিচে দেয়া আছে। সরাসরি ভিডিওটি দেখতে স্ক্রল করে নিচে চলে যান।

অন্যরা যা পড়ছেঃ

সৌদি প্রবাসী ছেলের মৃত্যুসংবাদ সইতে পারলেন না মা

একমাত্র ছেলে মহিউদ্দিন রাশেদের মৃত্যুর সংবাদ সহ্য করার মতো শক্তি ছিল না মা কুলফুরের নেছার। চেতনা হারান তিনি। স্বজনেরা দ্রুত তাঁকে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক জানান, স্ট্রোকে আক্রান্ত তিনি।

গতকাল বুধবার সৌদি আরবে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত হন ফেনীর মহিউদ্দিন রাশেদসহ ছয়জন। রাশেদের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়ার পর মাতম শুরু হয় তাঁর গ্রামের বাড়িতে। সংবাদ শুনেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন কুলফুরের নেছা। রাতে প্রথমে তাঁকে ফেনী ডায়াবেটিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সেখান থেকে আজ বৃহস্পতিবার সকালে ফেনী সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয় তাঁকে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এখনো জ্ঞান ফেরেনি কুলফুরের নেছার। মো. মহিউদ্দিন রাশেদ (৩৫) ছিলেন ফেনী পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড উত্তর বিরিঞ্চি এলাকার বাসিন্দা। বাবার নাম রফিকুল ইসলাম।

মা, বাবা, স্ত্রী শিখা মজুমদারসহ তিন সন্তান জিহান (৯), সাফওয়া (৫) ও আলিফকে (৫ মাস) নিয়ে ছিল রাশেদের সংসার। পরিবারে একটু আর্থিক সচ্ছলতা আনতে তিন মাস আগে পাড়ি জমান সৌদি আরবে। দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে রাশেদ ছিলেন সবার ছোট। বড় দুই বোনের বিয়ে হয়ে গেছে। মা-বাবার দেখাশোনা তিনিই করতেন।

About Admin Rafi

Leave a Reply