Sunday, January 29

পদ্মাবতীর জন্য থমকে গেল টলিউড

ভারতে পদ্মাবতী সিনেমার আঁচ ছড়িয়ে পড়ল পশ্চিমবঙ্গের টলিউডেও। গতকাল মঙ্গলবার ১৫ মিনিট ব্ল্যাকআউট (কর্মবিরতি) করল টলিউড। এদিন ঘড়ির কাঁটায় ঠিক ১২টা বাজতেই টলিউডের এনটিওয়ান, টেকনিশিয়ানসহ টলিউড ইন্ডাস্ট্রির সব স্টুডিওতে কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। টলিউড ইন্ডাস্ট্রির সব শিল্পী ও কলাকুশলী বাইরে এসে দাঁড়ান।

পদ্মাবতী নিয়ে ভারতে যে বিতর্ক দানা বেঁধেছে, তার প্রতিবাদস্বরূপ কালো ব্যাজ পরে নেন সবাই। এদিন প্রতিবাদে শামিল হয়ে টলিউড অভিনেত্রী ইন্দ্রানী হালদার বলেন, টিম পদ্মাবতীর পাশে রয়েছে গোটা টলিউড। কোনো ছবির মুক্তি এভাবে জোর জবরদস্তি করে কেউ আটকাতে পারবে না বলেও জানান তিনি।

ইন্দ্রানী বলেন, ছবি বানানো হয় মানুষের জন্য। মানুষের কথা ভেবে। মানুষই বিচার করতে পারে ছবিটি দেখা যাবে নাকি। ছবিতে নাকি ভারতের ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছে। কিন্তু যখন কট্টরপন্থী সংগঠন গায়ের জোর খাটিয়ে ছবি মুক্তির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে, তখন বাস্তবে একজন শিল্পীর সৃষ্টিকে গলা টিপে হত্যা করা হয়। একজন শিল্পী হিসেবে অপর একজন শিল্পীর প্রতি এই অসম্মান গ্রহণযোগ্য নয়।

এদিন টলিউডপাড়ায় এই ঘটনার প্রতিবাদে শামিল হন বড়-ছোট সব কলাকুশলী। ছবি তৈরির ওপর এই ধরনের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে সরব হন সবাই।

টলিউডের কলাকুশলীরা দাবি তোলেন, কোনো রকম হুলিয়া জারি করে কেউ বা কোনো দল ছবি দেখানো বন্ধ করতে পারে না। এর ফলে ভারতের শিল্পকে নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ তোলেন তাঁরা। বলিউডে সঞ্জয় বনশালীর মতো একজন পরিচালককে এভাবে অসম্মান টলিউড মেনে নেবে না বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়।

এর আগে সোমবারই টলিপাড়ায় পদ্মাবতীর সমর্থনে ১৫ মিনিটের ব্ল্যাক আউট হবে সে কথা জানিয়ে দিয়ে টলিউডের অন্যতম পরিচালক গৌতম ঘোষ বলেন, ‘এই ছবিটি নিয়ে দেশজুড়ে যা হচ্ছে তা সত্যি অনভিপ্রেত। এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানাই। ছবি নিয়ে কোনো ধরনের অশান্তি কাম্য নয়। পদ্মাবতীর পাশে রয়েছে টলিউড।’

অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় বলেন, আন্তর্জাতিক স্তরে বাংলা সিনেমা যথেষ্ট খ্যাতি অর্জন করেছে। সেখান থেকে দাঁড়িয়ে টলিউড ইন্ডাস্ট্রি পদ্মাবতীর পাশে রয়েছে। পরিচালক থেকে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের যে ধরনের ভাষা প্রয়োগ করে অপমান করা হচ্ছে, একজন অভিনেতা হিসেবে তার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সিনেমার কোনো ভাষা হয় না। সিনেমার ওপর হস্তক্ষেপ করা একেবারেই ঠিক নয়।’

Leave a Reply