Tuesday, May 30

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস অতিথি পাখির আগমনে মুখরিত

otithi pakhiধীরে ধীরে শীতের আগমনে অতিথি পাখিদের অন্যতম মৌসুমী আশ্রয়স্থল রাজধানীর উপকন্ঠে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জলাশয়গুলো মনোরম হয়ে উঠছে। ক্যাম্পাসের ছোট ও বড় আকারের জলজ পদ্ম সুশোভিত লেকে ৭০ প্রজাতির শত শত অতিথি পাখির আগমন ঘটেছে। লেকের পাশের গাছ-গাছালি অতিথি পাখিদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল হয়ে উঠেছে। কুয়াশাচ্ছন্ন ও শীতের আবহাওয়ায় সবুজে সুশোভিত বিশাল এই এলাকা অতিথি পাখিদের কলরব পাখিপ্রেমী দর্শকদের মুগ্ধ করে রাখছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্র জানান, গত কয়েক দিন ধরে ক্যাম্পাসে আকাশে এবং জলাশয়ে অতিথি পাখির আগমন দেখতে পাচ্ছি… জাহানারা ইমাম হলের পাশে, প্রশাসনিক ভবনের সামনে এবং সুইমিংপুলের পাশের জলাশয়ে পাখিরা উড়ছে, জলকেলিতে মুখরিত করে তুলছে। শীতের শুরুতে উত্তর গোলার্ধে অসহনীয় ঠান্ডা থেকে বাঁচতে অতিথি পাখিরা দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে গ্রীষ্মমন্ডলীয় দেশগুলো বিশেষ করে বাংলাদেশে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জলাশয়ে চলে আসে। এখানে তারা কয়েক মাস অভয়ারণ্য, সহনীয় আবহাওয়া, নিরাপত্তা খাদ্যের নিরাপত্তা পায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. মোস্তফা ফিরোজ বাসসকে বলেন, সাইবেরিয়া, মঙ্গোলিয়া, জিনজিয়াং এবং অন্যান্য স্থান থেকে প্রতিবছর ৭০ থেকে ৭৫ প্রজাতির শীতের অতিথি পাখি প্রচ- ঠান্ডা ও ঘন কুয়াশার বৈরি আবহাওয়া থেকে রক্ষা পেতে এখানে চলে আসে। তিনি বলেন, বিভিন্ন বছর অতিথি পাখির সংখ্যার তারতম্য লক্ষ্য করা যায়। অতিথি পাখিদের বেশীর ভাগ হাঁস জাতীয়, শরালি, পোচার্ড, ফ্লাইক্যাচার, চক্রবাক এবং কোম্ব ডাক।

Leave a Reply