Monday, January 30

চিরকুট লিখে গলায় পাগড়ি পেঁচিয়ে ফাঁস দিলেন যুবক

গাজীপুর মহানগরের পূবাইল থানার হায়দারাবাদ এলাকা থেকে গলায় পাগড়ি পেঁচানো অবস্থায় এক মাওলানার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সেখান থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করেছে পুলিশ।

অভাবের তাড়নায় তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে চিরকুট লেখা দেখে ধারণা করছে পুলিশ।

সোমবার সন্ধ্যায় ঝুলন্ত অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করা হয়।

নিহতের নাম হাফেজ মাওলানা আমজাদ হোসেন (৪৫)। তিনি কাপাসিয়া উপজেলার পলাশপুর এলাকার মাওলানা আব্দুল আউয়ালের ছেলে।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন জিএমপির পূবাইল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হুমায়ূন কবির।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আমজাদ হোসেন পূবাইলের হায়দরাবাদ এলাকায় ভাড়া বাসায় পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন ও ঢাকার পল্টন এলাকায় একটি ট্রাভেল এজেন্সি পরিচালনা করতেন। আমজাদ হোসেনের স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে তার বাবার বাড়ি বেড়াতে গিয়েছেন। রোববার রাতে আমজাদ হোসেন হায়দরাবাদ এলাকায় তার বাসায় এসে একাই অবস্থান করছিলেন।

সোমবার মোবাইল ফোনে কল করে আমজাদ হোসেনকে না পেয়ে বাসার মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করে তার খোঁজ নিতে অনুরোধ করেন সন্তানেরা। পরে বিকাল ৪টার দিকে তার বাসার দরজা ভেতর থেকে বন্ধ পেয়ে নক করলেও কোনো সাড়া-শব্দ পাওয়া যায়নি। এ সময় স্থানীয়রা জড়ো হয়ে জানালা দিয়ে রুমের ভেতরে আমজাদ হোসেনকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। পরে থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ এসে দরজা খুলে ভেতরে প্রবেশ করে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে।

পূবাইল থানার এসআই হুমায়ূন কবির বলেন, সোমবার সন্ধ্যায় ঘটনাস্থল থেকে ফাঁস লাগানো অবস্থায় আমজাদ হোসেনের লাশ উদ্ধার করা হয়। মাথার পাগড়ি দিয়ে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলে ছিলেন আমজাদ হোসেন। এছাড়া একটি চিরকুট পাওয়া গেছে। চিরকুটের লেখা থেকে ধারণা করা হচ্ছে তিনি আর্থিক সংকট থেকে হতাশায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

তিনি আরও জানান, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply