Sunday, January 29

আমিও সে সুযোগে গার্লফ্রেন্ডকে কল করে আমার বাসায় আসতে বললাম…ভালোবাসার গল্প

আমিও সে সুযোগে- গার্লফ্রেন্ডকে
১৪ ফেব্রুয়ারি ঘুম থেকে উঠেই ফোন দিলাম আমার গার্লফ্রেন্ডকে।কয়েক বার ফোন দেওয়ার পর মৃদু কন্ঠে গার্লফ্রেন্ড বলল

গার্লফ্রেন্ডঃ কি ব্যাপার? সকাল ১০টাই যে ছেলের ঘুম ভাঙ্গে না।আজ সেই ছেলে ভোর ৫ টাই কল করছে। মিস করছো নাকি?
আমিঃ আরে ধুর। আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি তো। এই দিনে সব গার্লফ্রেন্ড আর বয়ফ্রেন্ডরা ১ সাথে ডেটিংএ যায় জানোনা?

গার্লফ্রেন্ডঃ হুম জানি। তো প্লান কি আজকের?
আমিঃ রেডি হয়ে ৯টার সময় বাসা থেকে বের হবা। ৯.৩০ এর ভিতর পৌছাবো। তারপর পার্কের এমন কোনো ১টা কোনায় যেয়ে আমরা বসবো যেখান থেকে আমাদের ভালো ভাবে দেখা যাবে না।

গার্লফ্রেন্ডঃ আমাকে জড়িয়ে ধরবা না?
আমিঃ হ্যা
গার্লফ্রেন্ডঃ কিস করবা না?
আমিঃ হ্যা করবো
গার্লফ্রেন্ডঃ শরিরের বিভিন্ন জায়গায় হাত দিবা না।
আমিঃ তা তো অবশ্যয় করবো।

গার্লফ্রেন্ডঃ তাহলে ১ কাজ করো পার্কে না যেয়ে তোমার কোনো একটা ফ্রেন্ডের বাসায় নিয়ে চলো আমাকে।

আমিঃ (মনে মনে খুশি হয়ে) ঠিক আছে আমার আব্বু আম্মু তো অফিসে চলে যাবে। আর বোন ও কলেজে যাবে। তুমি আমার বাসায় আসো। অনেক আদর করবো আজকে।

গার্লফ্রেন্ডঃ ঠিক আছে।
কলটি কেটে দিলাম।

আমার আব্বু আম্মু আর বোন ৯টা বাজলে বাসা থেকে বের হবে। আমি তো চরম খুশি। আরেকটু ঘুমিয়ে ৮টায় উঠলাম। তারপর ব্রাশ করে সেভ করে একটু ভাল ড্রেস পরলাম।

আয়নার দিকে তাকিয়ে দেখি চুল গুলা এলোমেলো হয়ে আছে। একটু জ্যাল লাগিয়ে ঠিক করে নিলাম। আচ্ছা একটু বডি স্প্রে দিলে কেমন হয়।

ভাবতে ভাবতে চোখ গেল একটা বডি স্প্রের দিকে। এটা সেই বডি স্প্রে যেটা আমার গার্লফ্রেন্ড আমাকে দিয়ে বলছিল তার সাথে দেখা করতে যাওয়ার দিন গুলাতে আমি যেন এই স্প্রে টায় ইউজ করি।

আজ রুম ডেট করবো। আর তাছাড়া স্পেসাল ডে বলে কথা। একটু কড়া করে স্প্রে টা ইউজ করলাম।

দেখতে দেখতে ৯টা বেজে গেল। আব্বু আম্মু আর বোন বাসা থেকে বাইরে চলে গেল। আমিও সে সুযোগে গার্লফ্রেন্ডকে কল করে আমার বাসায় আসতে বললাম।

মনে মনে ঠিক করলাম আর যেভাবেই হোক সেক্স করতেই হবে। আমার অনেক ফ্রেন্ড এই দিনে সেক্স করেছে। আমি করবো না তাকি হয়।
উপসসস…… আমি তো কনডম কিনতেই ভূলে গেছি।
তাড়াতাড়ি ফার্মেসীতে গেলাম।

আমিঃ মামা এক প্যাকেট কনডম দেন।

ফার্মেসীর লোক টাও মুচকি মুচকি হাসছে। হাসবেই তো। এক দিনে আমাদের মত ছেলেরা কেন কনডম কেনে তা সবাই জানে।

কন্ডমটা নিয়ে বাসায় আসলাম। রুমে ডুকে বিছানাটা একটু ঠিক করে নিলাম। একটু পরেই এই বিছানায় আমি ওকে নিয়ে কত্ত কিছু করবো আমার তো আর সহ্য হচ্ছে না।

মিনিট দশেক পর ফোন বেজে উঠলো। আমার গার্লফ্রেন্ড এর কল রিসিভ করলাম। বলল সে বাসার সামনে দাঁড়িয়ে আছে। আমি ভিতরে ডাকলাম চলে আসলো। আমি রুমে এনে দরজা আড়কিয়ে দিলাম।

এক পর বেডে ওকে বসিয়ে দিলাম। পাশে বসে একটা লিপ কিস করবো সে আমাকে থামিয়ে দিয়ে বলল

গার্লফ্রেন্ডঃ তোমার বোন কোথায়?

আমিঃ ওর বান্ধবী মিমের সাথে কলেজে গেছে।

গার্লফ্রেন্ডঃ মিমের কাছে ফোন দিয়ে জিজ্ঞেস করো তোমার বোন কোথায়।

বুকটা কেমন জানি কেপে উঠলো। আমি মিমকে কল করলাম।

আমিঃ হ্যালো মিম আমার বোন কি তোমার সাথে কলেজে আছে?

মিমঃ না ভাই।সকালে আপনার বোন ফোন করে বলল আপনারা নাকি আপনার বোন সহ সবাই নানি বাড়ি যাবেন। তাই আমি তো একা একা কলেজে চলে আসছি।

কথাটা শুনে আমার শরির ঘেমে উঠলো। তাহলে আমার বোন কলেজে যাওয়ার নাম করে কোথায় গেল?

আমি আর নিতে না পেরে বোনকে কল করলাম। আমার বোন ফোন কেটে দিয়ে এসএমএস করলো (ভাইয়া আমি ক্লাসে আছি। পরে কল করো)

আমি আবার কল করলাম। আমার ফোন কেটে দিয়ে ফোন অফ করে রাখলো।
বুঝলাম আমি আজ আমার গার্লফ্রেন্ড এর সাথে যা করতে যাচ্ছি আমার বোনের সাথেও তাই হতে যাচ্ছে।

চিন্তায় মাথাটা ভারী হয়ে গেল আমার বোনের সাথে যদি সত্যি এমন কিছু হয় তাহলে আমি আর আমার বাবা মা সমাজে মুখ দেখাবো কিভাবে? আমার

বোনকে কে বিয়ে করবে?
হে আল্লাহ আমি কি করবো এখন?

আমার গার্লফ্রেন্ড পাশে বসে আছে। আমি অনবরত বোনকে কল করছি বার বার সুইচ অফ বলছে।

ওহ আল্লাহ প্লিজ আমাদের এত্ত বড় শাস্তি দিও না।

কি করবো ভাবতে ভাবতে আমার ফোনে প্রায় ৩০ মিনিট পর বোন এর আরেকটা এসএমএস আসলো (ভাইয়া আমি কোথায় আছি সেটা তোমার পাশে বসা মেয়েটার কাছ থেকে জেনে নিও)।

আমি আমার গার্লফ্রেন্ডের দিকে তাকালাম। কিন্তু কি বলবো কিছু বুঝতে পারছিলাম না। আমার গার্লফ্রেন্ড তার পাশে আমাকে বসতে বললও

।আমি বসলাম তারপর আমার গার্লফ্রেন্ড বলতে শুরু করলোঃ

শোনো বাবু তুমি আমাকে কতক্ষানি ভালবাসো আমি জানি না। কিন্তু আমি তোমাকে অনেক ভালবাসি। তুমি যখন আজ ভোরে ফোন করে এই সব কথা গুলা বলছিলে আমার তখন অনেক খারাপ লাগছিলো কথা গুলা।

আমার খুব লজ্জা লাগছিলো এটা ভেবে যে আমি এমন একটা পশুকে ভালবাসি যে আমার থেকে আমার শরির কে বেশি ভালবাসে।

তখনি আমি তোমার ফ্রেন্ডের থেকে তোমার বোনের নাম্বার নিই আর ফোন করে তোমার বোনকে সব বলি।
চিন্তা করো না। তোমার বোন মিম এর সাথে কলেজেই আছে। সবই ছিল আমাদের প্লান।

এখন বুঝতে পারছো তো আজ যদি আমি তোমার সাথে সেক্স করি আর এটা যদি জানাজানি হয়। তাহলে এই সমাজের কাছে আমি সহ আমার ফ্যামিলি কতটা নিচে নামবে।

বাবু সব থেকে সুখের স্থান বেহেস্তে । আল্লাহ আদমকে তৈরী করে সেই বেহেস্তেই রাখছিলেন। তারপরও তার সেই বেহেস্ত তার ভাল লাগতো না।কারন তার ১টা সঙ্গী দরকার ছিল।

তাই আল্লাহ হাওয়া কে তৈরী করেন। আল্লাহ যখন আদম আর হাওয়াকে পৃথিবীর দুই প্রান্তে দুজনকে নিক্ষেপ করেন তখন এই পৃথিবীরতে আলো ছিল না।

তারপরও তারা এই বিশাল পৃথিবীতে এক অপরকে খুজে পান ভালবাসার টানে। ভালবাসার শুরু কিন্তু কিন্তু পৃথিবীতে না। ভালবাসা শুরু বেহেস্ত থেকে। তাই এটাকে পবিত্র রাখো।

আমি বললামঃ কিন্তু আমি তো তোমাকে বিয়ে করবো তাহলে সেক্স করলে প্রব্লেম কোথায়?

সে আবার বলতে শুরু করলোঃ
বিয়ে করো আর না করো বিয়ের আগে এগুলা করা কবিরা গোনাহ। আর মৃত্যুর পর শাস্তি হিসেবে তোমাকে কি করা হবে তুমি কি জানো?

আমিঃ না

গার্লফ্রেন্ডঃ তোমার গোপনঙ্গে গরম শিশা ঢালা হবে। তুমি কি চাও তোমার এত বড় শাস্তি হোক?

আমিঃ না

গার্লফ্রেন্ডঃ তুমি কি এখন আমার সাথে সেক্স করতে চাও?

আমিঃ না?

গার্লফ্রেন্ডঃ আমি এখানে সেক্স করতে আসছি। আর তুমি আমাকে কিছু না করেই ছেড়ে দিবে।

আমিঃ চুপ করো তো? আমাকে আর কত শিক্ষা দিবে।

গার্লফ্রেন্ডটা আমার কথায় অনেক খুশি হল। আমি তাকে বিদায় জানানোর জন্য গেট পর্যন্ত গেলাম। তারপর তার হাত ধরে বললাম আজ তুমি আমার চোখ খুলে দিছো। অনেক বড় একটা পাপ থেকে বেচে গেছি।

Leave a Reply